Categories
Movies

𝗬𝗼𝘂𝗿 𝗡𝗮𝗺𝗲 (𝗞𝗶𝗺𝗶 𝗻𝗼 𝗡𝗮 𝘄𝗮)

🔰 𝘾𝙤𝙪𝙣𝙩𝙧𝙮 : Japan
🔰 𝙇𝙖𝙣𝙜𝙪𝙖𝙜𝙚 : Japanese, English
🔰 𝙂𝙚𝙣𝙧𝙚 : Animation, Drama, Fantasy
🔰 𝘿𝙞𝙧𝙚𝙘𝙩𝙤𝙧 : Makoto Shinkai
🔰 𝙄𝙈𝘿𝙗 : 8.4/10

©®Moviekotha

🔰 𝘾𝙤𝙪𝙣𝙩𝙧𝙮 : Japan
🔰 𝙇𝙖𝙣𝙜𝙪𝙖𝙜𝙚 : Japanese, English
🔰 𝙂𝙚𝙣𝙧𝙚 : Animation, Drama, Fantasy
🔰 𝘿𝙞𝙧𝙚𝙘𝙩𝙤𝙧 : Makoto Shinkai
🔰 𝙄𝙈𝘿𝙗 : 8.4/10

©®Moviekotha (Rakib)

*** 97% 𝐆𝐨𝐨𝐠𝐥𝐞 𝐔𝐬𝐞𝐫𝐬 𝐋𝐢𝐤𝐞𝐬 𝐓𝐡𝐢𝐬 𝐌𝐨𝐯𝐢𝐞

এনিমেটেড ফিচার পছন্দ করেন অথচ মাকোতো শিনকাই পরিচালিত মুভি “Your Name” দেখে নি এমন মানুষ খুঁজে পাওয়া দুষ্কর। এই মুভিটা নিঃসন্দেহে জাপানিজ এনিমে মুভিকে অন্য এক উচ্চতায় নিয়ে গেছে।

ছোট শহর ইতোমোরিতে বাস করা কিশোরী মিতসুহা তার জীবন নিয়ে হতাশ। ছোট একটি শহরে একজন সাধারণ মেয়ের জীবন তাকে ক্লান্ত করে তোলে, মনে প্রাণে সে চায় পরেরবার সে যেন টোকিও শহরে এক সুদর্শন ছেলে হয়ে জন্ম নেয়! এক সকালে ঘুম ভেঙে মিতসুহা নিজেকে আবিষ্কার করে সুদর্শন টোকিওবাসী ছেলেরূপে। পরদিন ঘুম ভেঙে নিজেকে আগের অবস্থাতেই ফিরে পেয়ে তার ধারণা হয় সে হয়তো স্বপ্ন দেখছিল। তাই যদি হবে, তাহলে স্কুলে সবাই এমন অদ্ভুত আচরণ করছে কেন ওর সাথে? কেন তার ডায়েরিতে অচেনা হস্তাক্ষরে লেখা “তুমি কে?’ কেন তার মনে হচ্ছে সে অন্য কারো জীবন যাপন করেছিল? কেন দেহ অদল বদল হচ্ছে মিতসুহা আর তাকির?

আপাতদৃষ্টিতে মাকোতো শিনকাই নির্মিত ইয়োর নেম মুভির এই দেহ অদলবদলের কাহিনী খুব সরল মনে হলেও এর মাঝে রয়েছে অনেক নতুন মাত্রা। টোকিও শহরে বসবাসকারী তাকি আর গ্রামের মেয়ে মিতসুহা কীভাবে নিজেদের মানিয়ে নেয় পরস্পরের জীবনের সাথে, কীভাবে নোটবইতে, সেলফোনে একজন আরেকজনের জন্য রেখে যায় বার্তা, আর কীভাবেই বা দেখা না করেই প্রেমে পড়ে যায় একজন আরেকজনের। হুট করেই বন্ধ হয়ে যায় তাকি আর মিতসুহার এই অদ্ভুত যোগাযোগ।

মিতসুহাকে খুঁজতে ইতোমোরি গিয়ে তাকি কেন খুঁজে পায় না মিতসুহাকে? কেনই বা তাকির নোটবই আর সেলফোন থেকে উধাও হয়ে গেছে মিতসুহার অস্তিত্বের চিহ্নগুলো? কেন তাকি কিছুতেই মনে করতে পারছে না মেয়েটির নাম, যার সাথে তার আত্মার অদলবদল হয়েছে দিনের পর দিন? তাকি কি খুঁজে বের করবে, নাকি ভুলে যাবে মিতসুহাকে? মিতসুহা কি চিরতরে হারিয়ে যাবে তাকি

সৌন্দর্যের দিক থেকে বিবেচনা করলে এটি নিঃসন্দেহে সেরা অ্যানিমেগুলোর মধ্যে একটি। বাতাসে উড়তে থাকা মিতসুহার চুল কিংবা তাকির অগোছালো বেডরুম সবকিছুই অত্যন্ত যত্নের সাথে আঁকা। সাধারণ থেকে সাধারণতর দৃশ্যগুলোও প্রায় নিখুঁত করে তুলে ধরা হয়েছে।

সিনেমার কন্ঠ অভিনেতারা বেশ দক্ষ ছিলেন, যার ফলে প্রতিটা চরিত্রের আবেগ দারুণভাবে ফুটে উঠেছে। মিতসুহার মিষ্টি কন্ঠ বা দাদীর দৃঢ় স্বর, প্রতিটি চরিত্র কার্যকরভাবে উঠে এসেছে। প্রতিটি দৃশ্যের ব্যাকগ্রাউন্ড মিউজিক চমৎকারভাবে সমন্বিত ছিল। সুললিত পিয়ানোর ব্যবহার দৃশ্যগুলোতে অন্যরকম স্বস্তি এনে দিচ্ছিল।

❤️❤️❤️

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *