Categories
Books

|| রিভিউ ||

রিভিউ নাম্বারঃ ২৭

বইঃ কালো বরফ
লেখকঃ মাহমুদুল হক
প্রকাশকঃ সাহিত্য প্রকাশ
প্রকাশকালঃ ১৯৯২
পঞ্চম মুদ্রণঃ ২০১৬
ঘরানাঃ সমকালীন/জীবনমুখী উপন্যাস
প্রচ্ছদঃ অজানা
পৃষ্ঠাঃ ১৩০
মুদ্রিত মূল্যঃ ২৫০ টাকা
ধরণঃ

Get the kotha app

রিভিউ নাম্বারঃ ২৭

বইঃ কালো বরফ
লেখকঃ মাহমুদুল হক
প্রকাশকঃ সাহিত্য প্রকাশ
প্রকাশকালঃ ১৯৯২
পঞ্চম মুদ্রণঃ ২০১৬
ঘরানাঃ সমকালীন/জীবনমুখী উপন্যাস
প্রচ্ছদঃ অজানা
পৃষ্ঠাঃ ১৩০
মুদ্রিত মূল্যঃ ২৫০ টাকা
ধরণঃ পিডিএফ

কাহিনি সংক্ষেপঃ আবদুল খালেক গ্রামের এক কলেজে শিক্ষকতা করে। স্ত্রী রেখা ও ছোট্ট একটা ছেলে টুকুকে নিয়ে তার সংসার। টেনেটুনে চলা সংসার নিয়ে রেখার অশেষ অভিযোগ। এই অভিযোগ গুলো আসলে আবদুল খালেককে স্পর্শ করেনা। বরং তার অবসর সময় কেটে যায় গ্রাম্য বাজারের নরহরি ডাক্তারের চেম্বারে আড্ডা দিয়ে ও শৈশবের স্মৃতির পুকুরে ডুব দিয়ে।

শৈশবে আবদুল খালেককে সবাই ডাকতো পোকা নামে। বাবা, মা, রানি বুবু, মনি ভাইজান ও টিপু ভাইজানকে নিয়ে দিব্যি কেটে যাচ্ছিলো ছোট্ট পোকা’র দিনগুলো। গ্রামের বৃদ্ধা মহিলা গিরিবালার সান্নিধ্যের মধ্যে পোকা খুঁজে পেতো রঙ। রঙ খুঁজে পেতো নির্দিষ্ট সময় পরপর ভিক্ষা নিতে আসা ভিখারির ঝুলিতে। রঙ লেগে ছিলো নিজের মৃত বোন কল্পনা করে নেয়া শালিক পাখিটার জন্য করা অপেক্ষার মাঝে। কতোই না রঙিন ছিলো ছোট্ট পোকা’র শৈশবটা!

আর আজ পোকা ওরফে আবদুল খালেক কেমন যেন চুপসে থাকে সারাক্ষণ। রেখার সাথেও যেন সহজ হতে পারেনা। তীব্র একটা কান্নার দমক বারবার গলা ঠেলে উপরের দিকে উঠে আসতে চায় তার। সেই যে শৈশবে ঘটে যাওয়া দেশভাগের আধো আধো স্মৃতি, সেটা কি আজও তাড়িয়ে নিয়ে বেড়ায় আবদুল খালেককে?

একটা মানুষ সময়ের সাথে সাথে তার ফেলে আসা স্মৃতিময় দিনগুলোর সাগরে উদ্ভ্রান্তের মতো সাঁতরে চলে। সাঁতরে চলেছে সেদিনের ছোট্ট পোকা আর আজকের দিশেহারা আবদুল খালেকও। সেই সাঁতরে চলার মধ্যেও বারবার তার সামনে জেগে উঠছে হাসি, আনন্দ, প্রাপ্তি-অপ্রাপ্তি আর নিদারুন ব্যথার ডুবোচর; একের পর এক।

পাঠ প্রতিক্রিয়াঃ বাংলা সাহিত্যের অন্যতম শক্তিমান কথাসাহিত্যিক মাহমুদুল হকের ‘কালো বরফ’ সুবিখ্যাত একটা উপন্যাস। ক্ষণজন্মা এই লেখকের লেখনীর সাথে যাঁরা পরিচিত, তাঁরা জানেন শব্দের ওপর তাঁর দখল কতোটা চমৎকার। এর আগে লেখকের দুটো বই পড়ার সৌভাগ্য হয়েছে আমার। ‘খেলাঘর’ ও ‘মাটির জাহাজ’। ‘কালো বরফ’ অনেক দেরিতে পড়লাম।

এই উপন্যাসের কাহিনি শুরু হয়েছে বাচ্চা একটা ছেলের নিষ্পাপ শৈশব জীবনের গল্প দিয়ে। মাহমুদুল হক তাঁর জাদুময় লেখনীতে একদম জীবন্ত ভাবে ফুটিয়ে তুলেছেন আমাদের পোকা’র ছেলেবেলা। হ্যাঁ, ‘আমাদের’ পোকাই বললাম। বইটা পড়তে গিয়ে পোকাকে নিজের অনেক কাছের একজন ভেবে নিয়েছি; ভেবে নিতে হয়েছে।

লেখক একইভাবে আবদুল খালেকের সংসার জীবন ও তার সাথে সম্পর্কিত পারিপার্শ্বিকতারও দারুন এক চিত্র তুলে এনেছেন পাঠকের সামনে। রেখার মধ্যবিত্ত জীবনের অপূর্ণ স্বপ্নের কথা গুলো মূর্ত হয়ে উঠেছে এই উপন্যাসে। রেখা ও আবদুল খালেক দম্পতির দাম্পত্য সম্পর্কের মাঝে যে শুধু মান-অভিমান ও অভাব-অভিযোগই ছিলো, তাও কিন্তু না। এসব আটপৌরে টানাপোড়েনকে ছাপিয়েও ‘কালো বরফে’ মাথা উঁচু করেছে নিখাদ প্রেম। জীবনমুখী উপন্যাস বোধহয় একেই বলে।

মাহমুদুল হক সত্যিই বাংলা কথাসাহিত্যের জগতে প্রভুত্ব করার ক্ষমতা নিয়ে জন্মেছিলেন। ‘কালো বরফ’ পড়লে এই ব্যাপারে সন্দেহ পোষণ করার কোন অবকাশ থাকেনা। দেশভাগের নিজস্ব অভিজ্ঞতাকে গভীর জীবনবোধে বেঁধে তিনি অসাধারণ একটা উপন্যাস বাংলা সাহিত্যকে উপহার দিয়ে গেছেন। চমৎকার এই উপন্যাসটা ভাবনারও খোরাক জুগিয়েছে।

ব্যক্তিগত রেটিংঃ ৪/৫
গুডরিডস রেটিংঃ ৪.৩১/৫

© Nazmul Islam Shohan (হিমু)

Get the kotha app

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *