Categories
Invention

বিড়ালের মল থেকে সুস্বাদু পানীয় ‘কোপি লুয়াক’ উদ্ভাবন ।

বিশ্বে সবচাইতে ব্যয়বহুল কফির মধ্যে কোপি লুয়াক একটি। কম ক্যাফেইন, কম প্রোটিন আর অ্যাসিডিটির সম্ভাবনা কম থাকায় সবার কাছে বেশ জনপ্রিয় এই পানীয়টি। তবে আপনি কি জানেন কোপি লুয়াক তৈরি হয় কিভেট বিড়ালের মল থে

Get the kotha app

বিশ্বে সবচাইতে ব্যয়বহুল কফির মধ্যে কোপি লুয়াক একটি। কম ক্যাফেইন, কম প্রোটিন আর অ্যাসিডিটির সম্ভাবনা কম থাকায় সবার কাছে বেশ জনপ্রিয় এই পানীয়টি। তবে আপনি কি জানেন কোপি লুয়াক তৈরি হয় কিভেট বিড়ালের মল থেকে!

মানুষের মতন কোপি লুয়াকের ফলের ভক্ত কিভেট বিড়ালেরা। তাই ইচ্ছেমতন ফল খেয়ে নেয় তারা আর শেষমেশ সেটা হজম করে যেটা ফেলে দেয় সেটা দিয়েই তৈরি হয় কোপি লুয়াক। ফলের বীজ হজম না হওয়ায় সেটুকু মল হয়ে বেরিয়ে আসে। একবার হজম প্রক্রিয়ার মধ্য দিয়ে যাওয়ায় কোপি লুয়াকের স্বাদ ও গুণাগুণ হয় অন্যান্য কফির চাইতে অসাধারণ এবং অনন্য।

গন্ধগোকুল নামক এই প্রজাতির বিড়াল ভাল কফিশুটি ধারণকারী কফি ফল খেতে পছন্দ করে বলে বাছাইকরণ ভাল হয়। খাওয়া কফিশুটির গন্ধ ও স্বাদ পৌষ্টিক প্রক্রিয়ায় উন্নত হয়। গন্ধগোকুল কফিশুটির মাংসল মজ্জার জন্য এগুলোকে খায়, তারপর এর পরিপাক নালীর মধ্যে গাঁজন হয়। গন্ধগোকুল এর প্রটিএজ নামক পাচক রস কফিশুটির মধ্যে প্রবেশ করে ক্ষুদ্রতর পেপটাইড এবং অন্যান্য মুক্ত অ্যামিনো অ্যাসিড তৈরি করে। গন্ধগোকুল এর পরিপাক নালির মাধ্যমে কফিশুটি তারপর মলের অন্যান্য অংশের সাথে বেরিয়ে আসে এবং সংগৃহীত হয়।

সুমাত্রার বাণিজ্যিক গন্ধগোকুল চাষ নিয়ে ২০১৩ সালে একটি বিবিসি তদন্তে এই পশু নিষ্ঠুরতা প্রকাশ পায়। প্রথাগত চাষাবাদকারীরাও বাণিজ্যিক গন্ধগোকুল চাষ পদ্ধতির সমালোচনা করেন কারণ তারা কি কফিশুটি খাবে তা ব্যবসায়ীরা নির্বাচন করে।

বন্য গন্ধগোকুলের মল সংগ্রহ করার সনাতন পদ্ধতির পরিবর্তে অধিক ব্যবসার খাতিরে চাষের সেই পদ্ধতি গ্রহণ করা হয় যাতে ব্যাটারি খাঁচা সিস্টেমের মধ্যে গন্ধগোকুলকে জোর করে কফিশুটি খাওয়ানো হয়।

Get the kotha app

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *