Categories
Movies

Komola Rocket

©® রাকিব ভলেন্টিয়ার মুভি কথা

[No spoiler]

কমলা রঙের একটি স্টিমার। উপর তলার প্রথম শ্রেণিতে থাকছে পয়সা ওয়ালারা, নিচ তলায় থাকছে সাধারণ মানুষেরা। বাস্তবের মতই যেন দারুণ ভাবে শ্রেণি বিভাজন তৈরি করে দিলেন পরিচালক নূর ইমরান মিঠু, যাকে অসম্ভব ভালো লেগেছিল “পিঁপড়াবিদ্যা”-র নায়ক হিসেবে। উপর তলায় কেবিন ভাড়া করে পালিয়ে যাচ্ছেন আগুনে ভস্ম হয়ে যাওয়া গার্মেন্ট কারখানার মালিক আতিক সাহেব (তৌকীর আহমেদ)। ভাগ্যের কী অদ্ভুত পরিহাস যে একই লঞ্চে করে যাচ্ছে সেই আগুনে দগ্ধ হওয়া এক স্ত্রীর মৃতদেহ, সঙ্গী তার স্বামী মনসুর (জয় রাজ)। আর দুই চরিত্রের মধ্যে সেতু হয়ে আছে মফিজুর (মোশাররফ করিম)।

স্টিমারের যাত্রা যতই এগিয়ে চলে ততই দুই শ্রেণির মানুষগুলোর পরিচয় বের হয়ে আসতে থাকে। নিচতলায় থাকা সার্কাসের সাথে সাথে যেন জীবন নিয়েও অদ্ভুত এক সার্কাস ফুটে ওঠে। চাটুকার গাড়ির ব্যবসায়ী মতিনের চরিত্রে যেমন ফুটে ওঠে একদম স্বাভাবিক এক বাঙালি, তেমনি তার স্ত্রীও একদম সাধারণ এক উচ্চবিত্ত নারী। কী অদ্ভুত যে যখন জোগানের কোনো শেষ নেই তখন আতিক সাহেবকে তারা ডিনারের আমন্ত্রণ জানায় কিন্তু যখন খাবারের খোঁজে সবাই দিশেহারা তখন ঠিকই ক্ষুধার্ত আতিকের সামনে সে দরজাটি লাগিয়ে দেয়। এটাই কি মানব চরিত্র না? বিসিএস, যৌনতা, কুসংস্কার, সংস্কৃতি – কী নেই কমলা রঙের এই স্টিমারে?

মাত্র ৯২ মিনিটের সিনেমাতে মাঝের দিকে বেশ একঘেয়ে লেগে যাচ্ছিল। অসাধারণ কালার গ্রেডিং আর পরিচ্ছন্ন ফিল্মমেকিং থাকলেও কেমন জানি ঝুলে যাচ্ছিল। কিন্তু শেষ ১৫ মিনিটের পরিচালক দুর্দান্ত এক রোলার কোস্টারে নিয়ে গেলেন। খুব ধীর লয়ে শুরু করেছেন সাসপেন্স। আঁচ করতে পারছিলাম কিছু একটা হবে। কিন্তু ধীর লয়েই এত সুন্দর এক বিশৃঙ্খলা তৈরি করলেন যে আমি হাততালি না দিয়ে পারলাম না। ভাগ্যের অদ্ভুত জোকগুলোর পাঞ্চলাইনগুলো লাগছিণ একদম জায়গামত। আর একদম উপযুক্ত মুহূর্তে সাসপেন্সের রাবারটি ছিঁড়ে ফেললেন। উপর তলা আর নিচতলার মধ্যে থাকা দেয়ালটা ভেঙ্গে গুড়িয়ে গেল। খুব কমন একটা প্রভাবক দিয়ে দুই শ্রেণিকে নামিয়ে আনলেন এক কাতারে (আক্ষরিক অর্থেই)। এবং যেভাবে গল্পের যবনিকা টানা হলো তাতেও মুগ্ধতার রেশ থেকে গেল। সাধারণ সিনেমার মত গল্পের শেষ করেন নি তিনি। বরং রেখে দিয়েছেন একদম চূড়ান্ত মুহূর্তে। এর পর থেকে দায়িত্ব পুরোটাই দর্শকের ওপর। চাইলে নিজের মত করে পরিণতি ভেবে নিতে পারেন।

সাহিত্যিক শাহাদুজ্জামানের দুটি ছোট গল্প “সাইপ্রাস” আর “মৌলিক” থেকে চিত্রনাট্য অ্যাডাপ্ট করা হয়েছে। পুরো কাস্টের অভিনয়ই দুর্দান্ত লেগেছে। যদিও গল্পে একটা প্লটহোল থেকে গেছে তবে সেটাকে পাশ কাটিয়ে যাওয়া তেমন কঠিন কোনো কাজ না। বাড়াবাড়ি হয়ে যাবে হয়তো কিন্তু খুব অদ্ভুত ভাবে প্যারাসাইটের সাথে কমলা রকেটের থিমের বেশ সুন্দর একটা মিল খুঁজে পেলাম। খুব করে দেখার জন্য অনুরোধ করব।

রেটিং- ৮

[আমি সত্যিই অবাক যে এই সিনেমা নিয়ে আলোচনা এত কম। বাংলাদেশের স্বাধীন চলচ্চিত্রগুলো বেশির ভাগ সময়েই হলে আসে না বলে ক্ষোভ বেশ পুরনো। কিন্তু পত্রিকায় পড়লাম নেটফ্লিক্সে রয়েছে সিনেমাটি। তাহলে তার পড়ও দেখা নিয়ে সমস্যা কোথায়? আমার নেটফ্লিক্স নেই, আমাকেও চোরাই করে দেখতে হয়েছে। সেভাবেও তো দেখার ইচ্ছা জাগে না অনেকের। কিন্তু সিনেমা নিয়ে হতাশা ঠিকই থাকে। মাঝেমধ্যে মনে হয় আমাদের আসলে ভালো সিনেমার স্বীকৃতি দিতেই সমস্যা। রাতসাসানের মত একটা গড়পড়তা সিনেমা নিয়ে আমাদের হাইপের শেষ থাকে না। কিন্তু দেশের এত ভালো এবং মৌলিক এবং গভীর গল্পের একটি সিনেমাকে আমরা এড়িয়ে যাই। আফসোস!]

YouTube video Moviekotha ⏩

আমাদের পাশেই থাকুন ✅

ডাউনলোড লিঙ্ক এর জন্য জয়েন করুন ⏬⏬⏬

⏩Telegram link……… : t.me/Moviekotha

⏩YouTube link…….. : https://bit.ly/36GxyeC

⏩Instagram……………: instagram.com/moviekotha/

📌মুভি লাভারদের মত কেউ মোবাইল লাভার হন এখনি ঘুরে আসুন আমাদের অফিসিয়াল Mobile kotha account থেকে 🔜👇👇👇 ⏩mobile Kotha……… : https://bit.ly/36PVcFt

Categories
Movies

Rangasthalam (Telegu)

📌রাকিব ভলেন্টিয়ার Movie kotha

Releasing Year : 2018
IMDB Rating : 8.4/10

১৯৮০ সালের প্রেক্ষাপটে রাঙ্গাস্থলাম নামক গ্রামকে ঘিরেই ছবির পটভূমি। মূল ভূমিকায় অভিনয় করেছেন মেগা পাওয়ার স্টার খ্যাত রামচারণ, যে কিনা একজন শ্রবণ প্রতিবন্ধী। যার কারণে তাকে নানা সমস্যার মুখোমুখি হতে হয়। পেশায় সে একজন জমিতে পানি দেয়ার মেশিন এর এর মালিক। কিন্তু সবার কাছে সে সাউন্ড ইঞ্জিনিয়ার নামেই পরিচিত। রামচরনের বিপরীতে রয়েছেন বিউটি কুইন সামান্থা আক্কিনিনি। ভিলেন চরিত্রে অভিনয় করেছেন জাগপতি বাবু, যার চরিত্রটি একজন গ্রাম প্রধান এর। যে ৩০ বছর যাবত রাঙ্গাস্থলাম শোষণ করে চলেছে সে। এবং মুভিতে রামচরনের বড় ভাইয়ের চরিত্রে অভিনয় করেছেন আদি পিনিশেট্টি। আরো একটি গুরুত্বপূর্ণ রোলে অভিনয় করেছেন প্রকাশ রাজ।

আমার মতে রামচারণ এর ক্যারিয়ার এর একটি ব্যতিক্রম ছবি রাঙ্গাস্থলাম। যারা রামচরনের অভিনয় নিয়ে নানা ধরনের খারাপ মন্তব্য করতো, তাদের এই মুভিটি দেখার জন্য বিশেষভাবে বলা হলো। মুভিতে সামান্তাও অভিনিয়ের দিক থেকে অসাধারন কাজ করেছেন। আর বাকিদের অভিনয়ও পারফেক্ট ই ছিলো।

ছবিটি একদম মাসালা টাইপ এর নয়।কিন্তু মুভিতে রয়েছে নানা ধরণের টুইস্ট, যা আপনাকে ছবির প্রাণকেন্দ্রে আটকিয়ে রাখবে।

আশা করি সবাই ছবিটি উপভোগ করবেন। আপনাদের মূল্যবান মতামত দিয়ে আরো ভালো রিভিউ লেখার জন্য অনুপ্রানিত করবেন।
ধন্যবাদ

স্বনামধন্য পরিচালক সুকুমার পরিচালিত একটি অসাধারণ ছবি Rangasthalam. তার সবগুলো ছবিতে ব্যতিক্রমতা খুঁজে পাওয়া যায়। এটিও তার বাইরে নয়।

YouTube video Moviekotha ⏩

আমাদের পাশেই থাকুন ✅

ডাউনলোড লিঙ্ক এর জন্য জয়েন করুন ⏬⏬⏬

⏩Telegram link……… : t.me/Moviekotha

⏩YouTube link…….. : https://bit.ly/36GxyeC

⏩Instagram……………: instagram.com/moviekotha/

📌মুভি লাভারদের মত কেউ মোবাইল লাভার হন এখনি ঘুরে আসুন আমাদের অফিসিয়াল Mobile kotha account থেকে 🔜👇👇👇 ⏩mobile Kotha……… : https://bit.ly/36PVcFt

Categories
Movies

Queen of Spades: The Dark Rite (2015)

©® সাকিব ভলেন্টিয়ার মুভি কথা

IMDb: 5.4

আয়নার ভুত খুবই ভয় লাগে। ছোটবেলায় Ahaat এর একটা এপিসোড দেখেছিলাম আয়নার ভুতের। কয়েকদিন পর্যন্ত আয়না দেখি নাই। এই মুভিটাও তেমনই ভয়ের। আপনারাও যদি এমন ভয়ের মুভি দেখতে চান যেটার ভয়ের রেশ ৩/৪ দিন পর্যন্ত থেকে যাবে, তাহলে এই মুভিটি দেখতে পারেন।

কাহিনিসংক্ষেপঃ
৪ জন বন্ধু Anna, Katya, Sergey আর Matvey মিলে আড্ডা দিচ্ছিল। Katya সবাইকে একটা ঘটনা বলতে থাকে। কীভাবে একটি ছেলে Queen of Spades নামক এক মহিলার শক্তিশালী আত্মাকে ডাকে। তারপর থেকেই সেই আত্মা তাকে ভয় দেখানো শুরু করে। ছেলেটি শেষ-মেষ হাসপাতালের জানালা দিয়ে লাফ দিয়ে আত্মহত্যা করে। সবাই এই ঘটনাটাকে অবিশ্বাস করে। মজা হিসেবে নেয়। তারা সিদ্ধান্ত নেয় যে তারাও সেই আত্মাকে ডাকবে। কিন্তু তারা মনে মনে এগুলো বিশ্বাস করে না। তাদের মধ্যে সবচেয়ে ছোট Anna. তার বয়স ১২ বছর। তাকে দিয়েই আত্মাকে ডাকানোর সিদ্ধান্ত নেয়া হয়। Anna ভয়ে মানা করে। কিন্তু তাদের প্ররোচনায় শেষমেষ রাজি হয়ে যায়। নিয়মানুযায়ী লিপ্সটিক দিয়ে আয়নাতে একটা দরজা আর সিঁড়ি আঁকে। তারপর একটা জ্বলন্ত মোমবাতি হাতে নিয়ে তিনবার বলে Queen of Spades, show yourself. তারপর তেমন কিছুই হয় না। এসব ঘটনা Sergey তার ক্যামেরায় রেকর্ড করে রাখে।

পরের দিন Matvey, Anna এর সাথে দেখা করতে তার বাড়ী যায়। সে Anna কে বলে যে গতকাল রাতে সে আয়নায় সেই আত্মাকে দেখেছে। আর Katya বলেছিল যে সেই আত্মা মানুষের চুল কেটে দিতে পারে। তো Matvey নিজের মাথাটা ঘুরিয়ে তার চুলের কাটা অংশ Anna কে দেখায়। Anna কিছু না বলেই রান্নাঘরে যায় চা আনতে। এবং ফিরে এসে দেখে যে Matvey জমিনে পরে আছে। পরে জানা যায় হার্ট এটাকে তার মৃত্যু হয়েছে।
সেদিন রাতে Anna ও স্বপ্নে সেই আত্মাকে তার চুল কাটতে দেখে। পরের দিন Anna এর মা Marina ফোন করে তার স্বামী Anton কে (Anna এর বাবা) ডাকায়। এবং তাকে সব ঘটনা খুলে বলে। প্রথমে Anton কিছুই বিশ্বাস করে না। শুধু শুধু সময় নষ্ট হয়েছে বলে চলে যেতে থাকে। কিন্তু গাড়ি নষ্ট হয়ে যায়। সেটা ঠিক করার সময় পেছন থেকে Katya এসে তার সাথে আলাপ করে এবং তাকে তার বাসায় নিয়ে যায়। Anton, Katya এর বাসায় গিয়ে দেখে সব আয়না কাপড় দিয়ে ঢাকা। এমন সময় সেখানে Sergey এসে উপস্থিত হয়। এবং সে জানায় যে এই আত্মা থেকে বাঁচার উপায় খুজতে সে ইন্টারনেটে এক ব্যক্তির সাথে আলাপ-আলোচনা করতেছে। এবং সেই ব্যক্তি তাকে সাহায্যও করছে। এসব শুনে Anton তাদের সবাইকে মানসিকভাবে অসুস্থ মনে করে। সে সিদ্ধান্ত নেয় আজকে রাতে তার মেয়ে Anna এর সাথেই থেকে যাবে।
রাতে Anton দুঃস্বপ্নের পাশাপাশি অনেক ভিশন ও দেখে। তারপরেও এই নাছোরবান্দা কিছুতেই বিশ্বাস করে না।
পরের দিন Matvey এর funeral এ সবাই উপস্থিত হয়। ঘটনাক্রমে Anton এর সাথে দেখা হয় সেই ডাক্তারের যে Matvey এর postmortem করেছিল। ডাক্তার তাকে পোস্টমর্টেমের কিছু ছবি দেখায়। যেখানে Matvey এর বুকের পাশে একটা অস্পষ্ট চেহারা দেখা যাচ্ছে।
এটা দেখার পর Anton, Sergey এর কাছে যায়। এবং তাকে সেদিনের ভিডিওটা দেখাতে বলে। Sergey slow motion এ ভিডিও প্লে করে Queen of Spades এর অস্তিত্ব দেখায় Anton কে। এরপর ওয়াকিটকি এর ফিকোয়েন্সি ব্যবহার করে তারা সেই আত্মার সাথে কন্টাক্ট করে জানতে পারে যে, সে Anna কে চায়।
এখন কথা হচ্ছে Anton কি পারবে তার একমাত্র মেয়ে Anna কে বাঁচাতে? আর বাঁচানোর উপায়ই বা কি?

অভিনয়ঃ অভিনয়ের কথা বললে প্রথমেই নাম আসবে Anton এর। তার অভিনয়ই বেশি পার্ফেক্ট লেগেছে। আর দ্বিতীয়তে বলতে হয় Exorcist এর কথা। তার অভিনয়ও বেশ ভালো ছিল। আর বাকি সবার অভিনয় average ছিল।

মুভিটি কেন দেখবেনঃ মুভিতে ছোটখাটো কয়েকটা ভুল আছে। আর কিছু জিনিস পুরোপুরি ক্লিয়ার করা হয় নি।
সেগুলা বাদ দিলে মুভিটা খুবই ভয়ের আর enjoyable. মুভির কাহিনিটাও খুব ভালো।

Big SPOILER Alert!!!!!
রিভিউ দেওয়ার মূল কারণ হচ্ছে আমার কয়েকটি প্রশ্ন আছে। যারা মুভিটি দেখেছেন, তারা যদি পারেন তাহলে উত্তর দিবেন।
১. Queen of Spades তো বলে যে সে Anna কে চায়। তাহলে Matvey আর Sergey কে মারে কেন??
২. যে আংটির মাধ্যমে সে Anna এর সাথে কানেক্ট করে সেই আংটি টা Katya জানাল দিয়ে ফেলে দেয়। পরের দিন Anton ও সেটাকে তার গাড়ির পাশে পরে থাকতে দেখে। লাথি মেরে সরিয়ে দেয়। তারপর সে Exorcist কে বাসায় পৌছিয়ে দিতে যায়। মাঝ রাস্তায় গাড়ি নষ্ট হয়ে গেলে সে বের হয়ে গাড়ির পাশে আবার সেই আংটি দেখতে পায়। এখন প্রশ্ন হলো সেটা ওখানে কি করে গেল? আর ভুত কি তাদের এই হিন্টস দিবে? তাহলে তো তারই লস। কারণ এই আংটি সেখানে দেখেই তো তারা আবার বাড়ির দিকে ফেরত আসে।
৩. Exorcist চায় Anna এর শরীর থেকে আত্মা বের করে ইদুরের শরীরে দিতে। কিন্তু তা হয়ে উঠে না। শেষে আত্মা Exorcist এর শরীরেই প্রবেশ করে। পরে যখন সে সবাইকে বের করে দিয়ে আত্মহত্যা করে, তখনও তো ইদুরটা ঘরেই থাকে। তাহলে সে মারা গেলেও তো আত্মা চলে যাবে না। ইদুরের ভেতর প্রবেশ করবে। তো আত্মহত্যা করে লাভ টা কি হল?
৪. মুভির শেষে বুঝায় যে আত্মাটা রয়ে গেছে। কিন্তু সে কি এখন Anton এর পরিবারকে Haunt করবে নাকি করবে না??

YouTube video Moviekotha ⏩

আমাদের পাশেই থাকুন ✅

ডাউনলোড লিঙ্ক এর জন্য জয়েন করুন ⏬⏬⏬

⏩Telegram link……… : t.me/Moviekotha

⏩YouTube link…….. : https://bit.ly/36GxyeC

⏩Instagram……………: instagram.com/moviekotha/

📌মুভি লাভারদের মত কেউ মোবাইল লাভার হন এখনি ঘুরে আসুন আমাদের অফিসিয়াল Mobile kotha account থেকে 🔜👇👇👇 ⏩mobile Kotha……… : https://bit.ly/36PVcFt

Categories
Movies

Ratsasan (2018) রিভিউ

©® রাকিব ভলেন্টিয়ার Movie kotha

Genre : Crime Thriller Film.
Director : Mysskin.
Imdb Rating : 8.7/10.
My Rating : 9.5/10
Starring : Vishnu Vishal & Amala Poul.

ছবিটিতে একজন উচ্চাকাঙ্ক্ষী চলচ্চিত্র পরিচালক গল্পের গল্প বলা হয়েছে। যা তার বাবার মৃত্যুর পরে একজন পুলিশ অফিসার হয়েছিলেন। এবং একটি সিরিয়াল কিলারের সন্ধানের চেষ্টা করেছিলেন। ২ ঘন্টা ৫০ মিনিটের পুরো মুভিটা জুরে এতটা টান টান উত্তেজনা যে আপনি চাইলেও অর্ধেক রেখে উঠে জেতে পারবেন না। ভিশনু ভিশালের মভি যারা কখনো দেখেননি তারা মুভির স্টোরিটার জন্য হলেও একবার ট্রাই করতে পারেন। এতো সুন্দর ভাবে পরিচালক গল্পটা তুলে ধরেছে যে, যা বড় বড় বলিউডের পরিচালদেরও সম্ভব হবে না এমন ভাবে ফুটিয়ে তুলেছেন। এক কথায় ভিশনু ভিশালের ফ্যান হয়ে গেসি মভিটা দেখার পর। অভিনেত্রি হিসেবে আমালা পউলের অভিনয় ঠিকঠাক ছিল।
তাই যাদের ক্রাইম থ্রিলার টাইপের মভি পছন্দ করেন
তাদের জন্য অবশই সাজেস্টেড রইল মভিটা।
ধন্নবাদ।

YouTube video Moviekotha ⏩

আমাদের পাশেই থাকুন ✅

ডাউনলোড লিঙ্ক এর জন্য জয়েন করুন ⏬⏬⏬

⏩Telegram link……… : t.me/Moviekotha

⏩YouTube link…….. : https://bit.ly/36GxyeC

⏩Instagram……………: instagram.com/moviekotha/

📌মুভি লাভারদের মত কেউ মোবাইল লাভার হন এখনি ঘুরে আসুন আমাদের অফিসিয়াল Mobile kotha account থেকে 🔜👇👇👇 ⏩mobile Kotha……… : https://bit.ly/36PVcFt

Categories
Movies

world class Motivational Movie ( Movie kotha)

Categories
Movies

Web Series : Mirzapur season 2

©® Rakib ভলেন্টিয়ার Movie kotha

আমাদের সকলে পছন্দের ওয়েব সিরিজ মির্জাপুর সিজন ২ এর অপেক্ষার প্রহর যেনো শেষই হচ্ছে না। সিজন ১ যেখানে শেষ করে দিয়েছিল সিজন২ শুরু না হওয়া পর্যন্ত যেনো রক্ত গরম হয়ে আছে।

তো সব মির্জাপুরবাসীর জন্য সুখবর রয়েছে। আজকে অভিনেতা আলী ফজল তার অফিশিয়াল ইনস্টাগ্রাম অ্যাকাউন্ট থেকে কনফার্ম করেছেন তাদের ডাবিং এর কাজ শেষ হওয়ার বিষয়টি। হয়ত আর কয়েক মাস পরই সিজন ২ অ্যামাজন প্রাইমে চলে আসবে। অ্যামাজন প্রাইমে নেটফ্লিক্স থেকেও কোয়ালিটি মেইনটেইনে বেশি সচেতন সেটা আমরা বিগত কয়েক বছর ধরেই দেখে আসছি। আশা করি এবার ও তার ব্যতিক্রম হবে না।

YouTube video Moviekotha ⏩

আমাদের পাশেই থাকুন ✅

ডাউনলোড লিঙ্ক এর জন্য জয়েন করুন ⏬⏬⏬

⏩Telegram link……… : t.me/Moviekotha

⏩YouTube link…….. : https://bit.ly/36GxyeC

⏩Instagram……………: instagram.com/moviekotha/

📌মুভি লাভারদের মত কেউ মোবাইল লাভার হন এখনি ঘুরে আসুন আমাদের অফিসিয়াল Mobile kotha account থেকে 🔜👇👇👇 ⏩mobile Kotha……… : https://bit.ly/36PVcFt

Categories
Movies

See (2019-)(s01)

© Rakib ভলেন্টিয়ার Movie kotha

IMDb : 7.6
এক্যুয়ামেন (baba) অভিনয় করছে । হা, এটাই দেখলাম সিরিজে ।
কাহিনী : এমন একটা ভবিষ্যৎ সময় যেখানে অজানা কারনে সব মানুষ অন্ধ থাকে এবং এতটাই ভবিষ্যৎ যে, মানুষ অন্ধ হবে এটাই স্বাভাবিক, কখনো চোখে দেখতে পেত সেটা ভুলে গেছে। বৈজ্ঞানিকভাবেই বলা আছে মানুষ পঞ্চইন্দ্রীয় এর কোন একটা কাজ না করলে বাকি চারটা অস্বাভাবিক অসাধারন কাজ দেয়, সেই কারনে বলতে পারেন পুরা ডেয়ারডেভিলদের বংশে ভরা এই পৃথিবীটি। অসংখ্য ছোট ছোট tribe এর একটিতে নায়ক থাকে তার গর্ভবতী স্ত্রী নিয়ে তাও গর্ভের সন্তান অন্য একজনের। এই সন্তান খুজতে ও জব্দ করতে তৎকালীন রানী(kane) তার সেনা(witchfinder) পাঠায় কারন সারা দুনিয়াতে কেবল এই সন্তানদের(জমজ) আছে power of light ,মানে দৃষ্টিশক্তি । আর baba তার দলবলসহ বাচ্চাদুটো পালন করতে অনিশ্চিত পরীক্ষার দিকে পা বাড়ায়।
.
.
……….. ……
SPOILER :
……….. ……
.
.
মূলত survival ধরনের সিরিজ । এই জমজদের আসল বাপ (জিরলাম্রেল ) একজন পাকা playboy। সে দৈবক্রমে জন্মথেকেই দৃস্টি লাভ করায় এর সুবিধা নিছে, সে নানা tribe এ ঘুরে ঘুরে এরম বাচ্চা রেখে আইছে আর সবাইরে (মা দের) গোপনে বলে দিছে বাচ্চারা ১২ বছর পর তার দেয়া ক্লু ধরে দূরবর্তী একস্থানে দেখা করবে। এদিকে ১২বছরপর, witchfinder এর দাবরানি খায়ে জিরলাম্রেল এর বলা রাস্তায় ‘বাত্তিরবাসা'(house of enlightenment) র দিকে যেতে থাকে baba তার বউ পোলাপান কোফুন ,হানিওয়া নিয়া এবং গিয়ে অনেক দৃষ্টিধারী ছেলে মেয়ে ায় জা জির এরই সন্তান । জির আপতপক্ষে army of sighted বানাচ্ছে যেহেতু শত শত বছর পর সে ই প্রথম দৃষ্টি পাইছে, তাই নিজেকে choosen one ভাবছে , দুনিয়া বদলাবে। তার লক্ষন খুব সুবিধার না তা বুঝতে পারছে যখন হানিওয়াকে এক জেনারেল এর কাছে বেচে দেয় জির। সিজন শেষে জির কে বাবা অন্ধ করে হানি কে উদ্ধার করতে যায় কোফুনকে নিয়ে । পোস্ট বড় না হয় তাই কিছু গুরুত্বপূর্ন চরিত্রের নাম ও ঘটনা এড়িয়ে গেছি ।
…..
অতিরিক্ত কথা :
…..
১. ডেয়ারডেভিল না দেখলে এই সিরিজ মেমরীকার্ড এ ভরে পানিতে ফেলে দিতাম
২. এই sighted পৃথিবীতে মানুষ যতটা না শালীন , surprisingly , এই unsighted পৃথিবীতে প্রচন্ড শালীন ( dont take it otherwise 😒)
৩. যারা বই কি তাই চেনে না, নৌকা কি বুঝে না , তারা দিব্বি রেশম মথ দিয়া চরকা কাইটা সুতা কাপড় বানাচ্ছে বিষয়টা ভৌতিক
৪. জেনারেল যে আধুনিক জুতা পরছে তাতে ভাবতেছি জুতা কারখানায় sighted কেউ আছে কিনা

YouTube video Moviekotha ⏩

আমাদের পাশেই থাকুন ✅

ডাউনলোড লিঙ্ক এর জন্য জয়েন করুন ⏬⏬⏬

⏩Telegram link……… : t.me/Moviekotha

⏩YouTube link…….. : https://bit.ly/36GxyeC

⏩Instagram……………: instagram.com/moviekotha/

📌মুভি লাভারদের মত কেউ মোবাইল লাভার হন এখনি ঘুরে আসুন আমাদের অফিসিয়াল Mobile kotha account থেকে 🔜👇👇👇 ⏩mobile Kotha……… : https://bit.ly/36PVcFt

IMDB Rating: 8.5

Categories
Movies

JOKER (EXPLAINED) [সাকিব]

*Spoiler Alert*

আজকে ২০১৯ এর খুব সম্ভবত সবথেকে জনপ্রিয় মুভিটা নিয়ে কথা বলব। আমরা সবাই জোকার দেখেছি… কিন্তু সবাই কী এর লুকিয়ে থাকা ব্যাপারগুলো ধরতে পেরেছি? চলুন জেনে নেয়া যাক!

মুভির অনেকটাই Self Explanatory!

Arthur Fleck হচ্ছে এই সিনেমার মূল চরিত্র। যে মানসিক ভাবে অসুস্থ এবং যার “সিউডোবালবার ইফেক্ট” নামে একটা রোগ থাকে। অর্থাৎ নিজের হাসির উপর কোন নিয়ন্ত্রণ নেই আর্থারের। যখন তখন, যে কোন মুহূর্তে না চাইতেও হেসে ফেলে সে।
এই মানসিক রোগের পাশাপাশি “মরার উপর খাড়ার ঘা” হিসেবে থাকে তার দরিদ্রতা। বাসায় একটা অসুস্থ মা(Penny Fleck), যার দেখভাল সে নিজেই করে।

রাস্তায় রাস্তায় “ক্লাউন” সেজে মানুষকে Entertain করা আর হাসপাতালের অসুস্থ বাচ্চাদের নাচ দেখিয়েই সে অল্প পরিমাণ অর্থ উপার্জন করতো। তাই দিয়ে চলতো ছোট্ট সংসার।

সে স্বপ্ন দেখত Stand up comedian হবার। তার আদর্শ ছিল Murray Franklin নামে একজন। এই মহাশয়ের একটা পপুলার টিভি টক-শো ছিল। নাম ছিল Murray Franklin Show। বলতে গেলে, সেসময় Murray Franklin ছিলেন কমিডিয়ানদের আইকন।

মুভিটা শুরু হয় আর্থারের জীবনের সবথেকে কঠিন অধ্যায়কে কেন্দ্র করে। হুট করে রাস্তায় আক্রমণের স্বীকার হয় সে। আর আক্রমণকারীরা তার কাছ থেকে একটা সাইনবোর্ড কেড়ে সেটা ভেঙে ফেলে।
এই সাইনবোর্ড হারিয়ে ফেলার দায়ে আর্থারকে জরিমানা করা হয় এবং চাকরি হারানোর হুমকিও দেয়া হয়।

এরই মধ্যে Arthur এর এক সহকর্মী তাকে আত্মরক্ষার জন্য পিস্তল দেয়। যাতে ভবিষ্যতে এরকম আক্রমণের হাত থেকে সে বাঁচতে পারে।

এরপর আরেকটা খারাপ ঘটনা। হাসপাতালে বাচ্চাদের নাচ দেখাতে গিয়ে সেই পিস্তল ভুল করে বাচ্চাদের সামনে পড়ে যায়। আর বাচ্চাদের সামনে পিস্তল বের করার জন্য হাসপাতালের চাকরিটাও হারিয়ে ফেলে সে।

চাকরি হারিয়ে মর্মাহত ছিল আর্থার। কাঁদতে কাঁদতে Subway ট্রেনে করে বাড়ি ফিরছিল সে। হঠাৎ কিছু ধনী ব্যবসায়ীদের সাথে বিবাদে জড়িয়ে পড়ে সে। তারা আর্থার কে মারধোর শুরু করে। কিন্তু এবার আর্থার আর চুপ করে থাকেনি। বন্দুক দিয়ে গুলি করে তিনজনকে হত্যা করে পালিয়ে যায় সে। যেহেতু সে ক্লাউন মেক আপ এ ছিল, তাই পুলিশও তাকে খুঁজে বের করতে পারেনাই। আর্থারও নির্দ্বিধায় পালিয়ে যেতে পারে।

এই হত্যাকান্ড আর্থারের জীবনের জন্য একটা বিশাল টার্নিং পয়েন্ট। মুভির এই পর্যায় থেকে আর্থারের মধ্যে অনেকটা প্রতিবাদী ভাব গড়ে ওঠে। যেন সে আর মুখ বুজে কিচ্ছু সহ্য করতে রাজি না। যারাই তাকে ছোট করে দেখবে তাদেরকে মেরে ফেলতেও দ্বিধাবোধ করবে না সে।

এরই মধ্যে শহরে আরেকটি বিচ্ছিন্ন ঘটনা ঘটে। Thomas Wayne (ব্যাটম্যানের বাবা) Gotham এর মেয়র হওয়ার প্রচারণার জন্য ক্যাম্পেইন শুরু করে। এক টিভি ইন্টারভিউতে সে Gotham শহরের গরীব/অধিকারবঞ্চিত মানুষদেরকে “Clown” হিসেবে অভিহিত করে।

এটাতেই সাধারণ মানুষের মধ্যে ক্ষোভ তৈরী হয়ে যায়।
একদিকে তো Thomas Wayne দরিদ্র মানুষদের অপমান করে “ক্লাউন” বলেছে, অপরদিকে ক্লাউন Make Up এর একজন সাবওয়ে তে তিনজন ধনী ব্যক্তিকে খুন করেছে।

ফলে সব অধিকার বঞ্চিত মানুষই এই খুনকে সমর্থন দেয়া শুরু করে এবং সবাই ক্লাউন মাস্ক পরে “Kill the rich”.. “Kill The rich” বলে স্লোগান দিয়ে যেন একটা আন্দোলন শুরু করে দেয়।

আর্থার না চাইতেই একটা আন্দোলনের জন্ম দিয়ে ফেলেছে এবং মনে মনে এটা ভেবে সে অনেক গর্ববোধ করে। আর বোঝা শুরু করে যে সে CHAOS(বিশৃঙ্খলা) ভালোবাসে।

এবার কিছুটা পজিটিভ জিনিস ঘটে আর্থারের জীবনে..

পাশের এপার্টমেন্টের সোফি নামে একটা মেয়ের সাথে তার সম্পর্ক হয়। কয়েকদিন তারা Date করে।

আবার কয়েকদিন পর আর্থার একটা ক্লাবে স্ট্যান্ড আপ কমিডি করার জন্য ডাক পায়। সেখানে সে সোফিকেও ইনভাইট করে।

তবে এবার আবার পতন।

সেই স্ট্যান্ড আপ কমিডি শো তে কেউ আর্থারের জোক শুনে হাসে না।
মানুষকে জোক শুনাতে গিয়ে সে যেন নিজেই একটা “জোক”
হয়ে যায়।

এটাতেই ঘটনা থেমে থাকেনা। আর্থারের বাজে স্ট্যান্ড আপ কমিডির ভিডিও পুরোপুরি ভাইরাল হয়ে যায়। তার পছন্দের Murray Franklin Show তেও আর্থারের পারফর্মেন্সের ভিডিও দেখিয়ে তাকে নিয়ে মজা নেয়া হয়।

আগুনে আরও ঘি ঢালা হয় যখন আর্থার নিজে Murray Franklin Show তে ইনভিটেশন পায়। অর্থাৎ শুধু ভিডিও ক্লিপ দেখিয়েই Murray Franklin ক্ষান্ত হননি। এখন তিনি আর্থারকে সামনাসামনি ডেকে তাকে নিয়ে ঠাট্টা করতে চান।

আর্থার খুব হতাশ হয়ে যায়। তার Hero তাকে নিয়ে মজা করছে? তার মনে হয়, এই Life এর চাইতে তার Death বেশি Meaningful হবে।
তাই সে সিদ্ধান্ত নেয় যে কিছুদিন পর যখন সে Murray Franklin শো তে যাবে.. সেখানে সে নিজেই নিজেকে গুলি মেরে সুইসাইড করবে।

তবে এখানেই আর্থারের জীবনে ট্রাজেডির শেষ হয় না।

সে তার মায়ের জিনিসপত্র থেকে একটা চিঠি খুঁজে পায়। সেই চিঠি পড়ে সে জানতে পারে সে আসলে Thomas Wayne এর অবৈধ সন্তান। তার মা(Penny Fleck) Wayne ফ্যামিলিতে কাজ করত আর সেইসময়ই Thomas আর তার মায়ের মধ্যে সম্পর্ক গড়ে ওঠে। সেই অবৈধ সম্পর্কের ফলই হচ্ছে আর্থার।

এটা দেখে আর্থার তার বাবার সাথে দেখা করার জন্য পাগল হয়ে যায়। একটা সিনেমার প্রেমিয়ারে সে Thomas কে Follow করে আর সেটার Wash Room এ Thomas আর Arthur মুখোমুখি হয়।

কিন্তু এখানেই আসে Double Twist! Thomas Wayne, তার আর Penny এর সম্পর্ককে পুরোপুরি অস্বীকার করে। উল্টো সে দাবি করে যে আর্থার হচ্ছে Adopted! আর তার মাও মানসিক ভাবে অসুস্থ। আর অসুস্থতর কারণে Arkham Asylum এও ভর্তি ছিল পেনি ফ্লেক।

আর্থারের জীবনে হতাশা নেমে আসে! সে তার আসল পরিচয় উদ্ধার করতে Arkham Asylum এ যায় এবং তার মায়ের ফাইল চুরি করে।

এবার আসে আর্থারের জীবনের সবথেকে বড় ট্র‍্যাজেডি।
সেই ফাইল পড়ে আর্থার জানতে পারে Penny Fleck শুধু থাকে এডপ্ট ই করে নি, বরং শৈশবে তার ওপর শারীরিক নির্যাতনও চালিয়েছে। আর্থারের বর্তমান মানসিক অবস্থা, তার ভঙ্গুর শরীর, শরীরভর্তি আঘাতের চিহ্ন.. সবকিছুর জন্য তার মা দায়ী।

এগুলোর কিছু NewsPaper Cutting ও পায় আর্থার।

তার কাছে নিজেকে অস্তিত্বহীন মনে হয়। সে Arthur Felck ও না, আবার Arthur Wayne ও না! যেন একটা ক্লিন স্লেট!
আর তার জীবন যেন “ট্র‍্যাজেডি” ও না..
এটা যেন COMEDY!

এবার আর্থার চূড়ান্ত বিকারগ্রস্ত হয়ে যায়। তার মা অসুস্থ হয়ে হাসপাতালে ভর্তি ছিল। সেই মা কে হাসপাতালে যেয়ে বালিশ চাপা দিয়ে খুন করে আর্থার। যেন নিজের শৈশবকালের নির্যাতন গুলোর প্রতিশোধ নেয়।

আর্থার সিদ্ধান্ত নেয়, তার জীবনকে যারাই “Comedy” বানিয়েছে.. যারাই হাসি ঠাট্টা করে, Bullying করে আর্থারকে আরও ছোট করেছে… সবাইকে খুন করবে সে। Eventually তার মায়ের হত্যা করার পর তার এক সহকর্মীকেও সে খুন করে। যে কিনা আর্থারকে নিয়ে একসময় হাসি ঠাট্টা করেছিল।

এরপর আর্থার যেন উন্মাদ হয়ে যায়! বদ্ধ উন্মাদ নয়… মুক্ত উন্মাদ!

এবার আর আর্থারকে ক্লাউন বলা যাবে না। এখন সে “JOKER”। মুভির প্রথমে যে আক্রমণকারীদের মার খেয়েছিল, সেই আর্থার ছিল অসহায় Clown!
আর মুভির এই পর্যায়ে যেই আর্থার সিঁড়িতে নেচে বেড়ায়, সেই আর্থার হচ্ছে আপন জগতের রাজা… JOKER!!! তার কোন পিছুটান নেই। সে মুক্ত বিহঙ্গ!

এই মানসিকতা নিয়ে, Joker Make-Up এর সাথে সে Murray Franklin শো তে যায়!

টক শো তে সে স্বীকার করে যে সে-ই Subway তে তিনজন মানুষকে হত্যা করেছিল! সে আরও বলে, সমাজের মানুষেরা পদে পদে তার মতো অসহায়কে পিষে ফেলতে মজা পায়। সমাজের বিত্তবানদের কাছে, অধিকারবঞ্চিত রা যেন “Joke” এর মতো।

কিন্তু না.. এরপর সে সুইসাইড করে না। সে আর আগের আর্থার নেই।
সে উল্টো Murray Franklin কে খুন করে বসে। যে কিনা আর্থারকে নিয়ে “জোক” করতেই এই শো তে ইনভাইট করেছিল তাকে।

আর এইসময়ই মুভির সবথেকে ফেমাস ডায়লগ থ্রো করে সে,

“What do you get when you cross a mentally ill loaner with a society that abandons him and treats him like trash?! You get what you fu**ing deserve!!”

এরপর আর্থারকে পুলিশ ধরে নিয়ে যায়।
সারা Gotham শহরে আরও জোরদার হয় আন্দোলন।

এই আন্দোলনের এক পর্যায়ে ক্লাউন মাস্ক পরে থাকা এক আন্দোলনকারী(Arthur না) Thomas Wayne আর তার স্ত্রীকে খুন করে।

অর্থাৎ জোকারের মুখোশ পরে থাকা একজনই ব্যাটম্যানের বাবা মায়ের খুনী। আবার
এজন্যই বলা হয়, Batman আর Joker সবসময়ের জন্য কানেক্টেড! তারা একজন আরেকজনকে ছাড়া অসম্পূর্ণ।

এরই মধ্যে যখন Murray Franklin Show এর Set থেকে আর্থারকে যেই গাড়িতে ধরে নিয়ে যাচ্ছিল পুলিশ,
রাস্তায় আন্দোলনকারীরা সেই গাড়িতে আক্রমণ করে আর্থারকে উদ্ধার করে।

Arthur সেই ভাঙা গাড়ির উপরে উঠে, রক্ত দিয়ে মুখে হাসি আঁকে..
আর পুরো জনতার সামনে হাত ছড়িয়ে তাদের অভিবাদন জানায়!
যেন সে বলতে চায়, “Look who is laughing now!”

এই সিনটা পুরো মুভিরই সবথেকে Iconic সিন বোধহয়!

এরপর মুভির শেষের দিক চলে আসে। Arkham Asylum এর কিছু শট দিয়ে মুভি শেষ হয়। বোঝা যায় সেই খুনের পর তার মানসিক ভারসাম্যহীনতার জন্য Arthur পাগলাগারদে ভর্তি হয় আর সেখানেই তার জীবন শেষ হয়।
The End!

কাহিনী তো এখানেই শেষ হয়ে যাওয়ার কথা। না বোঝার মতো তো কিছু নেই! হিডেন মিনিং ও তো নেই মনে হচ্ছে। তাহলে আমি আবার এতো বড় সড় পোস্ট লিখছি কেন?
কারণ আছে! কারণ আছে!

যদি আমি আপনাকে বলি উপরের এই ঘটনাগুলোর ম্যাক্সিমামই বাস্তবে ঘটেনি। এগুলো বেশিরভাগই ছিল আর্থারে কল্পনা.. অবাক হবেন?

ডিরেক্টর টড ফিলিপস আমাদেরকে মুভির বিভিন্ন জায়গায়ই হিন্টস দিয়েছেন যে, আর্থার কল্পনার জগতে বাস করতে ভালোবাসে।

Psychiatrist এর সাথে তার যেই দুইটা মিটিং দেখানো হয় সেখানে তার জার্নালে বিভিন্ন মনগড়ানো লেখা আর তার মেডিকেশনের দিকে নজর দেয়া জরুরী।

মুভির প্রথমেই যখন সে তার মায়ের সাথে টিভিতে Murray Franklin Show দেখছিল..
হঠাৎ সে কল্পনায় সেই Show এর ভেতরে চলে যায়। যেখানে Murray তার ব্যাপারে অনেক ভালো ভালো কথা বলে, এমনকি আর্থারের মতো সন্তানের প্রত্যাশাও করে। নিশ্চয়ই এটা বাস্তবে কখনও ঘটেনি। এগুলো ছিল কল্পনা।

আসলে আর্থার সবসময় এতো বেশি Bullying এর স্বীকার হয়েছে যে, সে সবসময় এটাই কল্পনা করতো যে মানুষ তাকে ভালোবাসে, তাকে পছন্দ করে, তাকে দেখে মুগ্ধ হয়!

JOKER মুভিটার স্পেশালিটি এখানেই।
এখানে আর্থারের জীবনের Hallucination, Delusion, Fantasy আর Reality কে একসাথে দেখানো হয়েছে। আর ডিরেক্টর কখনও স্পষ্ট করে এটাও বুঝতে দেননি যে কখন Reality দেখানো হচ্ছে আর কখন Fantasy। এদের মধ্যে Margin খুবই ছোট। এতোটাই ছোট যে আপনি পার্থক্য করতে পারবেন না যে কোনটা আসলেই ঘটেছে.. আর কোনটা ঘটেনি। যেন প্রত্যেক দর্শক এক একজন Arthur Fleck!

আসুন আরেকটু ক্লিয়ার করি।
সোফি নামের মেয়েটার কথা মনে আছে?
ওই যে আর্থারের সাথে যার সম্পর্ক গড়ে ওঠে? Date করে?

কিন্তু মুভিতেই এক পর্যায়ে সোফি সেই আর্থারকে চিনতে পারে না। আর্থারকে রাতের বেলা নিজের এপার্টমেন্টে দেখে চিৎকার করে ওঠে, ভয় পায়।

কারণ জানেন কি? আর্থার নিজের মনে মনেই সোফির সাথে নিজের একটা সম্পর্ক তৈরী করেছিল। যেখানে সোফি তার প্রতি ইম্প্রেসড। তাকে দেখে হাসে। তার সাথে রোম্যান্স করে।

তবে আসলে সেটা কখনই হয়নি। সোফি কখনই আর্থারকে ডেট করেনি। এটা ছিল আর্থারের ফ্যান্টাসি!

তাহলে বুঝছেন? আর্থার-সোফির ব্যাপারটা যদি মিথ্যা হয়.. এই সিনেমায় যে কোন কিছু মিথ্যা হতে পারে!

আর্থারের বাজে স্ট্যান্ড আপ কমিডি শো এর কথা মনে করতে পারেন? সেখানে কোন অডিয়েন্স তার কথায় প্রথমে হাসেনি। উল্টো তাকে দুয়ো দিয়েছিল। কিন্তু হঠাৎ করে সেখানে সোফি চলে আসে, আর তার পরের Joke এ অডিয়েন্স ও অনেক উৎসাহ নিয়ে হাসাহাসি করতে থাকে।

তার মানে.. আর্থারের জোক শুনে কেউ না হাসাটা Arthur এর জীবনের Reality..
কিন্তু তার জোক শুনে সবার হাসাটা একটা Fantasy!

এখন সবথেকে বড় কিছু প্রশ্ন..

# সে কী আসলেই সাবওয়ে তে তিনজনকে খুন করেছিল?

# সে কী আসলেই Murray Franklin শো তে গিয়ে Murray কে খুন করেছিল?

# পুরো শহরের আন্দোলনকারী জনগণ কী তাকে আসলেই উদ্ধার করেছিল??

# Thomas Wayne কী আসলে আর্থারের কারণেই খুন হয়েছিলেন?

আসলে এগুলোর উত্তর হ্যাঁ/না যে কোনটাই হতে পারে।

মুভির বিভিন্ন জায়গা এনালাইসিস করে বোঝা যায় যে, সাবওয়ে তে তিনজনের হত্যা, বালিশ চাপা দিয়ে নিজের মা কে হত্যা..
এগুলো খুব সম্ভবত বাস্তব ঘটনা।

কারণ এখান থেকেই আর্থার নিজের আসল পরিচয় জানতে পারে। আর ব্যাটম্যান-জোকারও এভাবেই কানেক্টেড হয়ে যায়।

তবে বাকি একটাও সত্য না। সে কখনও Murray Franklin শো তে যেয়ে Murray কে হত্যা করেনি আর পুরো শহরের জনগণও আর্থারকে বাঁচায়নি। আর্থারকে Idol ও মানে নি!

আর্থার সারাজীবনই এতো বেশি অপমানের স্বীকার হয়েছে যে, তার হ্যালুসিনেশনে সবসময় এটাই ছিল যে..
*মানুষ তাকে গুরুত্ব দিচ্ছে।
*তাকে কেন্দ্র করে শহরে আন্দোলন শুরু হইছে।
*সে সাধারণ জনগণের হিরো।

অথবা কে জানে?
এগুলো সত্য হতেও পারে।

আসলে সিনেমা হিসেবে “Joker” এ কারণেই অনবদ্য। সেরা ক্রিটিকরা এমনি এমনি দাঁড়িয়ে স্ট্যান্ডিং অভেশন দেয়নি!

আমাদের সমাজ সর্বদাই বঞ্চিতদের নিয়ে ছেলেখেলা করে গেছে। দুর্বল মানুষরা যেন সমাজের কাছে একটা “Joke” এর মতো!

“Arthur Fleck” সেই দুর্বল মানুষদের প্রতীক। আর মুভির শেষের দিকের JOKER Arthur হচ্ছে সেই মানুষদের চাপা ক্ষোভের প্রতীক।

আর্থারের সেই চিন্তাগুলো হ্যালুসিনেশন বা ফ্যান্টাসি যা-ই হোক না কেন.. সেটা সমাজের একটা Oppressed গোষ্ঠীর বাস্তবতা তুলে ধরেছে।

এই সিনেমার প্রত্যেকটা ডায়লগ নিয়ে এক এক টা রচনা লেখা সম্ভব!
আমার সবথেকে প্রিয়, “Is it just me? or is it getting crazier out there?”

আরও অনেক দিক তুলে ধরা সম্ভব এই সিনেমার। আজ এখানেই ক্ষান্ত দেই!

YouTube video Moviekotha ⏩

আমাদের পাশেই থাকুন ✅

ডাউনলোড লিঙ্ক এর জন্য জয়েন করুন ⏬⏬⏬

⏩Telegram link……… : t.me/Moviekotha

⏩YouTube link…….. : https://bit.ly/36GxyeC

⏩Instagram……………: instagram.com/moviekotha/

📌মুভি লাভারদের মত কেউ মোবাইল লাভার হন এখনি ঘুরে আসুন আমাদের অফিসিয়াল Mobile kotha account থেকে 🔜👇👇👇 ⏩mobile Kotha……… : https://bit.ly/36PVcFt

IMDB Rating: 8.5

Categories
Movies

সেরা ১০টি এনিমেশন মুভি যাদের সব গুলোকে ছাপিয়ে দেশিও এনিমেশন এর হাতছানি ।

Categories
Movies

সেরা ১০ টি এনিমেশন মুভি (coming soon)

এই ভিডিও টি বিশেষ হতে চলেছে কারণ ভিডিও শেষে দেশের কিছু কথা বলা হতে চলেছে ।

Categories
Movies

Five best animated movie in my opinion.

১. Your Name-
IMDb রেটিং : 8.4/10
এই জাপানি এনিমেটেড মুভিটি যারা এখনও দেখেন নি প্লিজ দেখবেন। রোমান্টিক ঘরোনার,সাথে বেশ খানিকটা কষ্টের (আমি এক জায়গায় কেদে দিসিলাম😐) সাধারণ গল্প বা কাহিনির থেকে একটু অন্য ধাচের। এনিমেশন লাভার দের জন্য মাস্ট ওয়াচ❤

২. Up-
IMDb রেটিং: 8.2/10
এই মুভিটা আমার দেখা সেরা মুভি গুলোর একটা। খুব বেশি ডায়লগ নেই, নেই খুব বেশি ক্যারেক্টর। কিন্তু অদ্ভুত এক ভালোবাসা এই মুভিটা। প্রিয় মানুষ টার স্বপ্ন পুরোনে অন্য মানুষ টা কত কিছুই না করে সেটা এই মুভিটা দেখলে বোঝা যায়। ছবিটি দেখে আমারো প্যারাডাইস ফলস এর পাশে বাড়ি বানাতে ইচ্ছে হয়েছিল💔

৩. Wall-E:
IMDb রেটিং: 8.4/10
মানুষ নিজেই কিভাবে নিজের থাকার বাসস্থান গ্রহ টিকে নোংরা করে ফেলছে সেটা চোখে আঙুল দিয়ে দেখান হয়েছে এই মুভিটিতে। এভাবে চলতে থাকলে যে একসময় পৃথিবী ছেড়ে মহাকাশে থাকা লাগবে এটাও স্পষ্ট। ওয়াল-ই নামের একটি রোবট কে নিয়ে এই মুভিটি। যে ইভা নামের আরেকটি রোবট কে ভালোবেসে ফেলে। মুভিটি এখনও না দেখলে মাস্ট ওয়াচ এর মাঝে রাখেন।

৪. Ratatouille-
IMDb রেটিং: 8/10
“Anyone can cook” এই বিশ্বাসী কোন ইদুর কে যদি আপনি আপনার রান্নাঘরে সুস্বাদু সব রান্না করতে দেখেন কেমন লাগবে আপনার? ঠিক এরকম একটি ইদুর এর গল্প এটি। সামান্য ইদুর থেকে শেষ পর্যন্ত শেফ এ পরিনত হওয়ার গল্প। এই এনিমেশন টা আমার খুব ভালো লাগে কারন এটাতে একটা মেসেজ স্পষ্ট দেওয়া হয় যে আমরা চাইলে সব সম্ভব। শুধুমাত্র ইচ্ছাশক্তি, ধৈর্য, আর প্যাশন থাকা লাগবে। এই মুভিটি না দেখলে অবশ্যই মাস্ট ওয়াচে রাখতে পারেন।

৫. Spirited Away-
IMDb রেটিং: 8.6/10
ছোট একটি মেয়ে। বাবা মায়ের সাথে থাকতে যায়। হঠাৎ তারা অন্য এক জগতে ঢুকে যায়। তার বাবা মা হয়ে যায় শুকর! মেয়েটি তার বাবা মা কে আবার মানুষে পরিনত করার জন্য কি করে জানতে হলে অবশ্যই এই এনিমেশম মুভিটা দেখবেন। মাস্ট ওয়াচে রাখার মত একটি এনিমেশন।

টাইটেল : parasite রিভিউ ( সাকিব )

Movie : Parasite (পরজীবী)
Year : 2019. Genre : Thriller/Comedy
Country : Korea🔥
IMDB : 8.6/10
Personal Rating : A True Masterpiece🔥

#No_Spoilers

২০১৯ সালে রিলিজ পাওয়া এই অসাধারণ মুভি টা কোরিয়ান সিনেমা ইন্ডাস্ট্রি তে এক অন্য রকম প্রভাব বিস্তার করেছিল। তাই আজ এই মুভি টাকে নিয়ে কিছু কথা বলি।

Awards : Parasite won a leading four awards at the 92nd Academy Awards: Best Picture, Best Director, Best Original Screenplay, and Best International Feature Film, becoming the first non-English film to win the Academy Award for Best Picture. ( পুরষ্কার এর ছড়াছড়ি এবং রেকর্ড🔥)

আগে একটা কথা বলে রাখি মুভি টা আমি ২০১৯ এই দেখি এবং 92th অস্কার ইভেন্ট এর অনেক আগেই দেখি। তাই সেই হিসেবেই মুভি টা নিয়ে কথা বলবো।এবং এখানে কোনো ধরনের স্পয়েলার থাকবেনা।

এটা একটা কোরিয়ান গরীব/নিম্নশ্রেণীর পরিবারের গল্প,,,যেখানে অনেক অভাব থাকে এবং তারা অনেক ধরনের উপাই খোঁজে জীবনে একটু সুখী হওয়ার,,,একটু সুখের মুখ দেখার চেষ্টা করে। কিন্তূ কথাই আছে যে সুখ বেশিদিন থাকেনা। যাই হোক এই মুভি টা একটু ভিন্ন ধরনের,,,যারা কোরিয়ান মুভি দেখেন তারা সবাই হয়তো জানেন তারা নিজেদের মুভি গুলোকে নিয়ে এক্সপেরিমেন্ট করতে ভালোবাসে,,আর এটাই তাদের কে আজ এই অবধি নিয়ে এসেছে।

মুভির স্টোরি,,কাস্ট,, সিনেমাটোগ্রাফি ছিলো ফার্স্ট ক্লাস । এখানে আমার ২জন খুব ই প্রীয় অভিনেতা আছে যারা হলেন : Kang-Ho Song, Lee Sun Gyun।
অভিনয় নিয়ে আমার বিশ্বাস কেউ কোনো অবজেকশন দিতে পারবেনা। খুব ই নিখুঁত অভিনয় ছিলো সবার।

এবার আসি মূল কথাই,,,অনেকেই মুভিটা হইতো দেখেছে,,অনেকে নেগেটিভ এবং অনেক পজিটিভ মতামত দিয়েছে। কিন্তূ যারা এখনো দেখেনি তারা কি মুভি টা দেখবেন?? আমি বলবো ১০০% দেখবেন। এটা একটা ভিন্ন টেস্ট এর সিনেমা,,এই মুভির এন্ডিং বাস্তব মুখী ছিলো যেমন টা ম্যাক্সিমাম কোরিয়ান থ্রিলার গুলার এন্ডিং হয়। কোরিয়ান রা অবাস্তব এন্ডিং পছন্দ করেনা এটা মাথাই রাখবেন।

টাইটেল : ডাউনলোড লিঙ্ক ( Breathe: Into the Shadows)

▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬

:: ডিরেক্ট ডাউনলোড লিংকঃ https://bit.ly/3gGvl6A [ 3.65 GB ] *720p

:: ডিরেক্ট ডাউনলোড লিংকঃ https://bit.ly/2Cl1XnG [ 1.7 GB ] *480p

▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬

:: টরেন্ট ডাউনলোড লিংকঃ https://bit.ly/2AJB6RC [ 12 GB ] *1080p

:: টরেন্ট ডাউনলোড লিংকঃ https://bit.ly/3fmsMqg [ 3.3 GB ] *720p

YouTube video Moviekotha ⏩

আমাদের পাশেই থাকুন ✅

ডাউনলোড লিঙ্ক এর জন্য জয়েন করুন ⏬⏬⏬

⏩Telegram link……… : t.me/Moviekotha

⏩YouTube link…….. : https://bit.ly/36GxyeC

⏩Instagram……………: instagram.com/moviekotha/

📌মুভি লাভারদের মত কেউ মোবাইল লাভার হন এখনি ঘুরে আসুন আমাদের অফিসিয়াল Mobile kotha account থেকে 🔜👇👇👇 ⏩mobile Kotha……… : https://bit.ly/36PVcFt

Categories
Movies

parasite রিভিউ ( সাকিব )

Movie : Parasite (পরজীবী)
Year : 2019. Genre : Thriller/Comedy
Country : Korea🔥
IMDB : 8.6/10
Personal Rating : A True Masterpiece🔥

#No_Spoilers

২০১৯ সালে রিলিজ পাওয়া এই অসাধারণ মুভি টা কোরিয়ান সিনেমা ইন্ডাস্ট্রি তে এক অন্য রকম প্রভাব বিস্তার করেছিল। তাই আজ এই মুভি টাকে নিয়ে কিছু কথা বলি।

Awards : Parasite won a leading four awards at the 92nd Academy Awards: Best Picture, Best Director, Best Original Screenplay, and Best International Feature Film, becoming the first non-English film to win the Academy Award for Best Picture. ( পুরষ্কার এর ছড়াছড়ি এবং রেকর্ড🔥)

আগে একটা কথা বলে রাখি মুভি টা আমি ২০১৯ এই দেখি এবং 92th অস্কার ইভেন্ট এর অনেক আগেই দেখি। তাই সেই হিসেবেই মুভি টা নিয়ে কথা বলবো।এবং এখানে কোনো ধরনের স্পয়েলার থাকবেনা।

এটা একটা কোরিয়ান গরীব/নিম্নশ্রেণীর পরিবারের গল্প,,,যেখানে অনেক অভাব থাকে এবং তারা অনেক ধরনের উপাই খোঁজে জীবনে একটু সুখী হওয়ার,,,একটু সুখের মুখ দেখার চেষ্টা করে। কিন্তূ কথাই আছে যে সুখ বেশিদিন থাকেনা। যাই হোক এই মুভি টা একটু ভিন্ন ধরনের,,,যারা কোরিয়ান মুভি দেখেন তারা সবাই হয়তো জানেন তারা নিজেদের মুভি গুলোকে নিয়ে এক্সপেরিমেন্ট করতে ভালোবাসে,,আর এটাই তাদের কে আজ এই অবধি নিয়ে এসেছে।

মুভির স্টোরি,,কাস্ট,, সিনেমাটোগ্রাফি ছিলো ফার্স্ট ক্লাস । এখানে আমার ২জন খুব ই প্রীয় অভিনেতা আছে যারা হলেন : Kang-Ho Song, Lee Sun Gyun।
অভিনয় নিয়ে আমার বিশ্বাস কেউ কোনো অবজেকশন দিতে পারবেনা। খুব ই নিখুঁত অভিনয় ছিলো সবার।

এবার আসি মূল কথাই,,,অনেকেই মুভিটা হইতো দেখেছে,,অনেকে নেগেটিভ এবং অনেক পজিটিভ মতামত দিয়েছে। কিন্তূ যারা এখনো দেখেনি তারা কি মুভি টা দেখবেন?? আমি বলবো ১০০% দেখবেন। এটা একটা ভিন্ন টেস্ট এর সিনেমা,,এই মুভির এন্ডিং বাস্তব মুখী ছিলো যেমন টা ম্যাক্সিমাম কোরিয়ান থ্রিলার গুলার এন্ডিং হয়। কোরিয়ান রা অবাস্তব এন্ডিং পছন্দ করেনা এটা মাথাই রাখবেন।

টাইটেল : ডাউনলোড লিঙ্ক ( Breathe: Into the Shadows)

▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬

:: ডিরেক্ট ডাউনলোড লিংকঃ https://bit.ly/3gGvl6A [ 3.65 GB ] *720p

:: ডিরেক্ট ডাউনলোড লিংকঃ https://bit.ly/2Cl1XnG [ 1.7 GB ] *480p

▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬

:: টরেন্ট ডাউনলোড লিংকঃ https://bit.ly/2AJB6RC [ 12 GB ] *1080p

:: টরেন্ট ডাউনলোড লিংকঃ https://bit.ly/3fmsMqg [ 3.3 GB ] *720p

YouTube video Moviekotha ⏩

আমাদের পাশেই থাকুন ✅

ডাউনলোড লিঙ্ক এর জন্য জয়েন করুন ⏬⏬⏬

⏩Telegram link……… : t.me/Moviekotha

⏩YouTube link…….. : https://bit.ly/36GxyeC

⏩Instagram……………: instagram.com/moviekotha/

📌মুভি লাভারদের মত কেউ মোবাইল লাভার হন এখনি ঘুরে আসুন আমাদের অফিসিয়াল Mobile kotha account থেকে 🔜👇👇👇 ⏩mobile Kotha……… : https://bit.ly/36PVcFt

Categories
Movies

ডাউনলোড লিঙ্ক ( Breathe: Into the Shadows)

▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬

:: ডিরেক্ট ডাউনলোড লিংকঃ https://bit.ly/3gGvl6A [ 3.65 GB ] *720p

:: ডিরেক্ট ডাউনলোড লিংকঃ https://bit.ly/2Cl1XnG [ 1.7 GB ] *480p

▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬

:: টরেন্ট ডাউনলোড লিংকঃ https://bit.ly/2AJB6RC [ 12 GB ] *1080p

:: টরেন্ট ডাউনলোড লিংকঃ https://bit.ly/3fmsMqg [ 3.3 GB ] *720p

YouTube video Moviekotha ⏩

আমাদের পাশেই থাকুন ✅

ডাউনলোড লিঙ্ক এর জন্য জয়েন করুন ⏬⏬⏬

⏩Telegram link……… : t.me/Moviekotha

⏩YouTube link…….. : https://bit.ly/36GxyeC

⏩Instagram……………: instagram.com/moviekotha/

📌মুভি লাভারদের মত কেউ মোবাইল লাভার হন এখনি ঘুরে আসুন আমাদের অফিসিয়াল Mobile kotha account থেকে 🔜👇👇👇 ⏩mobile Kotha……… : https://bit.ly/36PVcFt

Categories
Movies

সেরা ৫ টি একশন মুভি।

Categories
Movies

মিনা-রাজু অসামাজিকতার বিরুদ্ধে এক সামাজিক প্রতিবাদ ( সাকিব)

“আমি বাবা মায়ের শত আদরের মেয়ে!!”

উফফ!!গানটা শুনলে আজো শরীর দিয়ে এক বিদ্যুতের মত শিহরণ বয়ে যায়। মুঞ্চায় যেন টাইম ট্রাভেল করে আবার সেই বাচ্চা বয়সে ফিরে যাই।

আমাদের ছোটবেলার প্রায় সমগ্র স্মৃতিজুড়ে মিশে আছে এই কার্টুনটা।এখনো ইউটিউব ঘেঁটে কার্টুনটা দেখলেই সব শৈশবস্মৃতি চোখের সামনে ভেসে উঠে। চোখের কোণায় চলে আসে এক সুখমাখা জলধারা।

UNISEF এর এক অনবদ্য ক্রিয়েশন সামাজিক বার্তাবহ এই কার্টুনটার একেকটা ক্যারেক্টারের ডায়লগ আজো দর্শকের হৃদয়ে গেঁথে আছে।

দৈত্যঃ ‘এক মিনিট ছোট্ট বন্ধু, তুমি মনে হয় সাবান দিয়ে হাত ধুতে ভুলে গেছো! ‘

মিনাঃ মিঠু! দুষ্টমী কইরোনা।

মিঠুঃ হিহি! দুষ্টমী কইরোনা।দুষ্টমী কইরোনা।

মিনার প্লেটে অর্ধেক ডিম দিয়ে রাজুর প্লেটে পুরো ডিম দেওয়ার সিনটা মনে পড়লে সত্যিই নস্টালজিক হয়ে যাই।

তখনকার দিনে মফস্বলে টেলিভিশন ছিলো খুব কম। ৪/৫ টা গ্রাম খুজেঁ দু একটা বাড়িতে টিভি পাওয়া যেত।একেকটা টিভিওলায়া বাড়িতে মানুষের ভীড় হতো প্রচুর।যার বাসায় টিভি আছে,সেই ঔ এলাকার জমিদার।

পুরো গ্রামে আমার দাদুর বাসায় টিভি ছিলো। আমরা সবাই বিকেলের ‘টিকেট বুকিং’ দিয়ে রাখতাম,শুধুমাত্র এই কার্টুনটা দেখার জন্য😁

এখনো মনে পড়ে “বুধ-বৃহস্পতিবারঃ মিনা-রাজু আর ১২৩ সিসিমপুর । শুক্র-শনিবারঃ বাংলা সিনেমা।শুধুমাত্র বিটিভিতে। বিজ্ঞাপন দেখে অপেক্ষায় থাকতাম ঠিক কখন উপস্থাপক আপা বলবেন ” এখন দেখবেন ইউনিসেফ নিবেদিন মিনা-রাজু কার্টুনচিত্র”

নারী-পুরুষ সম অধিকার, বাল্যবিবাহ, নারীশিক্ষা উন্নয়ন, ইত্যাদিই এই কার্টুনের মূল বিষয়বস্তু। আমেরিকার ‘টম এন্ড জেরি’ ফ্রাঞ্চাইজ যখন তুমুল হাস্যরস তুলেছিলো।
এই মিনা-রাজু কার্টুনচিত্রটা তখন সামাজিক বার্তার পাশাপাশি হাসির খোরাকও জুগিয়েছিল।

এখন সেসব শুধুই স্মৃতির পাতায় হানা দেয়।আহা!!সেই দিনগুলো😭

Your Childhood was Awesome, If you Recognise this Cartoon💙

Update YouTube video ⏩⏬⏬⏬⏬⏬⏬

Video – https://youtu.be/mUZ2aWkHV4s

আমাদের পাশেই থাকুন ✅

ডাউনলোড লিঙ্ক এর জন্য জয়েন করুন ⏬⏬⏬

⏩Telegram link……… : t.me/Moviekotha

⏩YouTube link…….. : https://bit.ly/36GxyeC

⏩Instagram……………: instagram.com/moviekotha/

📌মুভি লাভারদের মত কেউ মোবাইল লাভার হন এখনি ঘুরে আসুন আমাদের অফিসিয়াল Mobile kotha account থেকে 🔜👇👇👇 ⏩mobile Kotha……… : https://bit.ly/36PVcFt